\

মনোনয়নপ্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকারে শেখ হাসিনা বিদ্রোহী প্রার্থী হলেই আজীবন বহিষ্কার

বৃহস্পতিবার, ১৫ নভেম্বর ২০১৮ | ৯:৪৮ পূর্বাহ্ণ | 404 বার

মনোনয়নপ্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকারে শেখ হাসিনা বিদ্রোহী প্রার্থী হলেই আজীবন বহিষ্কার

দলের মনোনয়নপ্রত্যাশীদের উদ্দেশে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, আগামী নির্বাচন খুব কঠিন নির্বাচন হবে। খুব প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ হবে। জাতীয় ও আন্তর্জাতিকভাবে জরিপ চালিয়েছি। কোন প্রার্থীর প্রতি ভোটারের সমর্থন আছে, সেটা বিবেচনায় নেওয়া হবে। তিনি বলেন, আমি যাকেই মনোনয়ন দেব, তাকেই মেনে নিয়ে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে। প্রার্থীর বিরোধিতা কিংবা বিদ্রোহী প্রার্থী হলে আজীবনের জন্য বহিষ্কার করা হবে। আওয়ামী লীগের দরজা চিরদিনের জন্য বন্ধ হবে। গতকাল গণভবনে দলের মনোনয়নপ্রত্যাশীদের উদ্দেশে দেওয়া বক্তৃতায় তিনি এ হুঁশিয়ারি দেন। এ অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের প্রবেশাধিকার ছিল না। উপস্থিত একাধিক মনোনয়নপ্রত্যাশীর সঙ্গে কথা বলে এসব তথ্য পাওয়া গেছে। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নৌকা পেতে ৪ হাজার ২৩ জন আওয়ামী লীগের মনোনয়ন ফরম তুলেছেন।
গতকাল গণভবনে যান প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করতে প্রার্থীরা। বেলা সাড়ে ১২টা থেকে দেড়টা পর্যন্ত ঘণ্টাব্যাপী বক্তব্যের এক পর্যায়ে ১৫ আগস্ট স্বজন হারানোর প্রেক্ষাপটসহ নিজের ওপর আসা বিভিন্ন হামলা-মামলা ও আঘাতের কথা তুলে ধরে আবেগঘন বক্তব্য দেন দলীয় সভানেত্রী শেখ হাসিনা। তার বক্তব্যে স্তব্ধ হয়ে যান উপস্থিত নেতারা। শুরুতেই নির্বাচনে দলীয় প্রস্তুতি ও অবস্থান তুলে ধরে বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। তার বক্তব্যেও ছিল কঠোর সাংগঠনিক নির্দেশনা। বৈঠক সূত্র জানায়, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, আগামী জাতীয় নির্বাচনে মনোনয়ন দেওয়ার ক্ষেত্রে কে বড় নেতা কে ছোট নেতা এই বিষয়টি গুরুত্ব পাবে না। বিভিন্ন জরিপে যারা এগিয়ে আছে, তাদেরই নৌকার মনোনয়ন দেওয়া হবে। যাকে মনোনয়ন দেব তার পক্ষেই ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে। তাকেই আপনাদের মেনে নিতে হবে। আপনারা কথা দিলেন? এ সময় প্রধানমন্ত্রীর কথায় মনোনয়নপ্রত্যাশীদের সবাই দুই হাত উঁচু করে সম্মতি দেন। তিনি আরও বলেন, ক্ষমতায় আসছি মনে করে নিজেদের মধ্যে যে আসন খাওয়া-খাওয়ির মনোভাব, তা পরিহার করতে হবে। গত দুই নির্বাচনে এনেছি, এবারও আমিই ক্ষমতায় আনব, এটা মনে করে কোনো লাভ নেই। প্রার্থীর নিজ নিজ যোগ্যতা, দক্ষতা, রাজনৈতিক ত্যাগ-তিতিক্ষা থাকতে হবে। অবশ্যই তাকে জনসম্পৃক্ত হতে হবে। আমি সবার সম্পর্কে জানি। আপনাদের সব তথ্য আমাদের কাছে আছে। কারা কী করেছেন, কারা কোন দল থেকে এসেছেন বেশি লাফালাফি করার দরকার নেই। কোনো গ্রুপিং করারও দরকার নেই।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, যারা জেলা পরিষদ, উপজেলা বা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কিংবা পৌরসভার মেয়র পদে নির্বাচিত হয়েছেন, তারা তো একটি পদে আছেনই। যদি তারা এখন কেউ এমপিও হতে চান, তাহলে ওই পদ খালি করে এমপি হতে হবে। এটা একটা ঝুঁকি। এই ঝুঁকিটা আমরা কেন মাঝপথে জাতীয় নির্বাচনকে সামনে রেখে নেব? তিনি বলেন, আমাদের দলের অনেক নেতা আছেন, যাদের অনেক ত্যাগ স্বীকার করতে হয়েছে, অনেক সংগ্রাম করতে হয়েছে, অনেক জেল-জুলুমের মুখে পড়তে হয়েছে। তাদেরও কিছু প্রাপ্য রয়েছে। আপনারা যারা পদে আছেন, তারা তো কিছু একটা পেয়েছেন। কিন্তু যারা পাননি, আমরা তাদের প্রোভাইড করব। এবার আশাতীত মনোনয়ন ফরম বিক্রির প্রসঙ্গ তুলে কিছুটা উষ্মা প্রকাশ করেন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, এবার ৩০০ আসনে চার হাজার ২৩ জন আওয়ামী লীগের মনোনয়ন ফরম নিয়েছেন। এটা এক দিকে ভালো। তবে কিছু কিছু আসনে অস্বাভাবিক হারে মনোনয়ন ফরম বিক্রি হয়েছে। এর কারণ হচ্ছে ওই এলাকায় দলের সাংগঠনিক দুর্বলতা রয়েছে। সেখানে নেতৃত্ব শূন্যতা রয়েছে, সেখানে যত বড় নেতাই হোক না কেন, তারা পার্টিকে অর্গানাইজড করতে পারেননি। এটা তাদের নেতৃত্বশূন্যতার প্রমাণ। সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে। আগামীতে ক্ষমতায় এলে এগুলোরও সমাধান করা হবে। জরিপ চালানোর প্রক্রিয়ার ধরনের কথা তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, আমি জাতীয়ভাবে জরিপের পাশাপাশি আন্তর্জাতিক সংস্থাকে ভাড়া করে জরিপ চালিয়েছি। প্রতিটি এলাকায় মাঠে-ঘাটে সাধারণ মানুষের কাছে বর্তমান এমপি ও মনোনয়নপ্রত্যাশীদের সম্পর্কে মতামত নেওয়া হয়েছে। চা দোকানদার, স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থী, রিকশাওয়ালার কাছে জিজ্ঞেস করা হয়েছে। এমপি ভালো না মন্দ। কার কি অবস্থান? এসব বিষয়ে বারবার খোঁজ-খবর নেওয়া হয়েছে। এই জরিপে যারা এগিয়ে আছেন। তাদেরই মনোনয়ন দেওয়া হবে। কোন প্রার্থীর প্রতি ভোটারের সমর্থন আছে, সেটা বিবেচনায় নেওয়া হবে। তিনি বলেন, একটা সিটে না জিতলে কি হবে? কারও এমন মনোভাব পোষণ করা যাবে না। এই মনোভাব দূর করতে হবে। বিজয়ী হতে হলে প্রতিটি আসনকেই গুরুত্ব দিতে হবে। কোনো আসনেই হারব না এই মানসিকতা সবাইকে পোষণ করতে হবে।

আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক অবস্থা ও নিজ পরিবারের নানা সদস্যের জীবন যাপনের প্রসঙ্গ তুলে আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন বঙ্গবন্ধুর জ্যেষ্ঠকন্যা শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগের সমর্থন আছে, কর্মী আছে, ভোট আছে । কিন্তু ইদানীং দৃশ্যমান কর্মী নেই। ১৯৮১ সালে নেতৃত্বে এসে আমি দলকে সংগঠিত করেছি। এর আগে জিয়াউর রহমান ৬ বছর আমাকে দেশে আসতে দেননি। দেশে ফিরলেও ৩২ নম্বরের বাড়িতে আমার বাবা-মায়ের জন্য মিলাদ ও দোয়া পড়তে দেওয়া হয়নি। সে বাড়িতে ঢুকতে দেওয়া হয়নি। রেহানার পাসপোর্ট ইস্যু করতে দেওয়া হয়নি। বিদেশে ফেরারি জীবন-যাপন করতে হয়েছে আমাদের। দেশে ফিরে তিলে তিলে এই দলকে গড়ে তুলেছি। আমি, রেহানা, জয়, পুতুলসহ আমার পরিবারের সদস্যরা অনেক অসহায় সময় পার করেছি। তিনি বলেন, অতীতে আওয়ামী লীগকে ঠেকানোর অনেক ষড়যন্ত্র হয়েছে। কিন্তু কেউ এ দলকে দমাতে পারেনি। এখনো নির্বাচন নিয়ে আওয়ামী লীগকে নিয়ে অনেক ষড়যন্ত্র চলছে। সবাইকে ঐক্যবদ্ধ থেকে এই ষড়যন্ত্র মোকাবিলা করতে হবে। নির্বাচন আর পেছানো হবে না জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, নির্বাচন কমিশন তফসিল ঘোষণা করেছে ২৩ ডিসেম্বর নির্বাচন হবে। আমরা মেনে নিলাম। সেই অনুযায়ী আমরা প্রস্তুতি নিচ্ছি। কিন্তু হঠাৎ বিএনপির পক্ষ থেকে নির্বাচন এক মাস পেছানোর দাবি জানানো হলো। কমিশন সবকিছু হিসাব করে এক সপ্তাহ পেছাল। আমরা কোনো প্রতিবাদ করিনি। এখন আবার তারা ভোট পেছানোর দাবি তুলেছে। এটা কেন? কী কারণে নির্বাচন পেছাতে হবে? তিনি বলেন, সংবিধান অনুযায়ীই নির্বাচন হবে। এরপর একদিনও নির্বাচন পেছানো হবে না। যদি তা করা হয় আওয়ামী লীগ সেটা মানবে না।

মন্তব্য করতে পারেন...

comments

Development by: webnewsdesign.com